এবার মুখ খুললেন ইলিয়াসের স্ত্রী কারিন - Vikaspedia

এবার মুখ খুললেন ইলিয়াসের স্ত্রী কারিন

সম্প্রতি কণ্ঠশিল্পী ইলিয়াস হোসেন ও অভিনেত্রী শাহ হুমায়রা সুবহার বিয়ে নিয়ে মিডিয়া পাড়া সরগরম। দু’জনের পাল্টা-পাল্টি অভিযোগ চলছে বেশ কয়েক মাস ধরে। সোশ্যাল মিডিয়া যখন ইলিয়াস-সুবহা ইস্যুতে গরম, ঠিক তখনই মুখ খুললেন ইলিয়াসের স্ত্রী কারিন নাজ। সাম্প্রতি বিডি২৪লাইভ’র সাথে কথা হয় এই তরুণীর। তিনি সুইডেনের স্টকহোমে বসবাস করছেন। সাক্ষাতকার নিয়েছেন আরেফিন সোহাগ।

আপনি কেমন আছেন? সাম্প্রতি অভিনেত্রী সুবহা আপনাকে মন্তব্য করে নিজের ফেসবুকে স্ট্যটাস দিয়েছেন, সে সম্পর্কে কিছু জানেন? এমন প্রশ্নের জবাবে কারিন নাজ বলেন, “আমি ভালো আছি। আমি যেটা বলতে চাই, ইলিয়াস কে নিয়ে সুবাহ মিথ্যা তথ্য দিচ্ছেন।

আমি কখনো কোথাও বলিনি যে ইলিয়াস আমার কাছ থেকে টাকা নেয় বরং আমাকে সব সময় স্বামী হিসেবে যা দায়িত্ব পালন করা দরকার ইলিয়াস সব সময়ই তা করেছে। এমনকি ইলিয়াসের সাবেক প্রেমিকাকে নিয়েও সুবাহ মিথ্যা তথ্য দিচ্ছে। ইলিয়াস যে নিশাতকে বিয়ে করেছিল তার কোন বৈধ কাবিন নামা কি আছে সুবার কাছে? অবশ্যই নেই। সুতরাং নিশাত কখনই ইলিয়াসের বউ ছিলনা। আমার সাথে নিশাতের কথা হয়েছে। নিশাত নিশ্চিত করেছে ইলিয়াস কখনই তার কাছ থেকে টাকা পয়সা চায়নি,

নিশাত আরও বলেন আমাকে, নিশাতের বরাত দিয়ে ২০১৫ সালের যে খবর প্রচার হচ্ছে সেটি নিশাতের বক্তব্য নয়, কোন একজন সাংবাদিক ইচ্ছা করে ইলিয়াসকে নিয়ে মিথ্যা বক্তব্য প্রকাশ করেছে আমার (নিশাত) বরাত দিয়ে, কিছু অসাধু ব্যক্তি ইলিয়াসের ইমেজ নষ্ট করতেই এসব গুজব ছড়িয়েছিল, সুতরাং এসব সুবহার বানানো কথা ছাড়া আর কিছু নয়।”

আলাপচারিতায় কারিন আরও বলেন, “আমার জন্ম সুইডেনে এবং থাকি ই সুইডেনে আমি অন্তত ইলিয়াসের সম্পর্কে এইটুকু বলতে পারি ইলিয়াস নেহায়াতই ভাল মানুষ। তাকে ফাসানো হয়েছে এবং হচ্ছে। আরেকটি অনুরোধ কোন গণ মাধ্যম আমার সাথে কথা না বলে যেন আমার বরাত দিয়ে কোন সংবাদ প্রকাশ না করে এটাই চাওয়া। সুবাহর সাথে আমার যখন কথা হয়েছিল আমি শুধুমাত্র ভদ্রতার খাতিরে তার সাথে ফ্রেন্ডলি কথা বলেছিলাম কিন্তু সে যে আমার এসব কথা রেকর্ড করে মানুষকে উল্টা বুঝাবে তা বুঝতে পারিনি।”

এদিকে গতকাল বুধবার (১৬ মার্চ) অভিনেত্রী শাহ হুমায়রা সুবহা তার নিজের ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন:-

“ইলিয়াস নিজেই আমার আগে তিন চারটা বিয়ে করেছে সবগুলারই খবর পত্রিকায় কাভারেজ হয়েছিল এবং সে সবার কাছ থেকেই ডলার এবং টাকা চাইত তার ১ম বউ আমেরিকার প্রবাসী নিশাত তাবাসসুম আলম বলছে সবখানে। তার দ্বিতীয় সুইডেনের স্ত্রী এবং তার মায়ের সাথে আমার কথা হয়েছিল তারাও বলেছে তাদের থেকেও সে বিভিন্ন সময় টাকা পয়সা চাইতো সব রেকর্ড গুলো আমার কাছে আছে। আমার যদি আগে বিয়ে থাকে তাহলে অবশ্যই আগের বিয়ের কাবিননামা আছে? কাবিননামা বা রেজিস্ট্রির কাগজ ছাড়া তো বিয়ে হওয়ার কথা না।

এইসব উল্টাপাল্টা মিথ্যা ছড়িয়ে সে আমার দেওয়া মামলাগুলো থেকে বাঁচতে চাচ্ছে যেন আমি মামলা তুলে নেই এবং দেনমোহরের টাকা না দেওয়ার ফন্দি করছে। আমি যানি সে নারী ও টাকা লোভী পুরুষ তাই আমি সবাইকে জানিয়ে দেনমহরের টাকাটা চেয়েছি এইটাই হয়েছে আমার দোষ!! এতো দিন পর নাটক সাজিয়ে আনছে !!!! আমার আগের তিন বিয়ে হওয়া পুরুষকে আমি কিভাবে ফাঁসিয়ে বিয়ে করব তাও এত কম টাকা কাবিনে দেনমহরে?

যদি ফাঁসিয়ে বিয়ে করতাম তাহলে দেনমোহর থাকতো ৭৭ লক্ষ টাকা।। এখন মাত্র টাকা ৭ লাখ ৭৭ হাজার টাকা থাকতো না। !! সে দোষী না নির্দোষ ই সেটার আদালতে প্রমাণ হবে ইনশাআল্লাহ আমার ১০০ বিয়ের কথা বলে আমাকে ভাইরাল করা যাবে বাট মামলা থেকে বাচা যাবেনা। আর আমার যদি কোন প্রকারের ক্ষয়ক্ষতি এবং আমি মরে যাই বা আমি গুম হয়ে যাই বা হারিয়ে যাই এর জন্য ইলিয়াস হোসেন এবং ইলিয়াস হোসেনের পুরো পরিবার দায়ী থাকবে আমার জন্য সবাই দোয়া করবেন আমাকে সে সব সময় ভয় ভীতী বিভিন্নভাবে ক্ষতি করার চেষ্টা করছে এবং সামাজিক হেয় করছে যাতে আমি অনেক ভেঙে পরী।। ”