টাকা না পেলে ‘বন্দিদের’ গলা কাটতেন তারা! - Vikaspedia

টাকা না পেলে ‘বন্দিদের’ গলা কাটতেন তারা!

যুক্তরাষ্ট্রের আদালতে ইসলামিক স্টেটের (আইএস) একজন সদস্যের বিচার শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার (২৯ মার্চ) জুরি নির্বাচনের পর বুধবার (৩০ মার্চ) তার যুক্তিতর্ক শুরু হচ্ছে।

ওই আইএস সদস্যের নাম আল শফি আলশেখ। খবর ডয়চে ভেলের।

সুদানে জন্ম নেওয়া আলশেখ শিশু বয়সে যুক্তরাজ্যে যান। আইএসে যোগ দিতে ২০১২ সালে তিনি সিরিয়া গিয়েছিলেন। সেখানে তিনি চারজনের একটি দলের সদস্য ছিলেন। ব্রিটিশ উচ্চারণের কারণে গ্রুপটি ব্রিটিশ ব্যান্ড ‘বিটলস’-এর নামে পরিচিত ছিল।

৩৩ বছর বয়সী আলশেখের বিরুদ্ধে মার্কিন সাংবাদিক জেমস ফোলি ও স্টিভেন সটলফ এবং ত্রাণকর্মী পিটার কাসিগ ও কেয়লা ম্যুলারকে হত্যার অভিযোগ আনা হয়েছে। এছাড়া আলশেখের বিটলস গ্রুপ প্রায় ১৫ দেশের অন্তত ২৭ জনকে অপহরণের সঙ্গে জড়িত বলে অভিযোগ রয়েছে।

অপহৃত হওয়া কয়েকজনকে তাদের দেশের সরকার অর্থের বিনিময়ে ছাড়িয়ে নিয়েছিল। টাকা না পাওয়ায় অন্যদের গলা কেটে হত্যা করা হয় এবং সেই ভিডিও প্রকাশ করা হয়।

আরেক সহযোগী ৩৭ বছর বয়সী আলেকজান্ডা কোটির সঙ্গে মিলে আলশেখ বন্দিদের দেখাশোনা করতেন। তারা বন্দিদের ওয়াটার-বোর্ডিং, ইলেকট্রিক শকসহ নানাভাবে নির্যাতন করতেন বলে অভিযোগ রয়েছে। বিচারের সময় তাদের কাছে নির্যাতনের শিকার হওয়া কয়েক বন্দির সাক্ষ্যগ্রহণ করা হবে।

আলশেখ ও কোটি ২০১৮ সালে তুরস্কে পালিয়ে যাওয়ার সময় সিরিয়ার কুর্দি বাহিনীর হাতে ধরা পড়েন। পরে তাদের ইরাকে মার্কিন বাহিনীর কাছে হস্তান্তর করা হয়। ওই বছরই তাদের নাগরিকত্ব বাতিল করে যুক্তরাজ্য।

২০২০ সালের অক্টোবরে তাদের বিচারের জন্য যুক্তরাষ্ট্রে নিয়ে যাওয়া হয়।

২০২১ সালের সেপ্টেম্বরে ফোলি, সটলফ, কাসিগ ও ম্যুলারকে হত্যার কথা স্বীকার করেন আলেকজান্ডা কোটি। তাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হতে পারে।

বিটলসের আরেক সদস্য আইন ডেভিস সন্ত্রাসবাদের মামলায় অভিযুক্ত হয়ে তুরস্কের কারাগারে সাত বছরের সাজা ভোগ করছেন।

গ্রুপের নেতা মোহাম্মদ এমওয়াজি, যিনি ‘জিহাদি জন’ নামে পরিচিত ছিলেন, তিনি ২০১৫ সালে সিরিয়ার মার্কিন ড্রোন হামলায় নিহত হন।