প্রেমিকের সামনেই এরশাদ শিকদারের মেয়ের ‘আত্মহত্যা’ - Vikaspedia

প্রেমিকের সামনেই এরশাদ শিকদারের মেয়ের ‘আত্মহত্যা’

গুলশানে এরশাদ শিকদারের মেয়ের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার
রাজধানীর গুলশানের সুবাস্তু টাওয়ারের বাসায় প্রেমিকের সঙ্গে অভিমান করে মোছা. জান্নাতুল নওরিন এশা (২২) নামে এক তরুণী গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। তিনি খুলনার কুখ্যাত এরশাদ শিকদারের মেয়ে।

বৃহস্পতিবার (৩ মার্চ) দিনগত রাতে এ ঘটনা ঘটে। শুক্রবার (৪ মার্চ) ভোর ছয়টার দিকে অচেতন অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের আত্মীয় সুমি আক্তার জানান, প্লাবন ঘোষ নামের এক ছেলের সঙ্গে তার দীর্ঘদিন প্রেম হয়। গতকাল দুজনের ঝগড়া এবং কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে এশা তার রুমে গিয়ে সিলিংফ্যানের সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন। তাকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

তিনি আরও জানান, এশা সিটি কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেছেন। গ্রামের বাড়ি খুলনা জেলার সোনাডাঙ্গা থানার দক্ষিণ সরণি রোড আবাসিক এলাকায়। বর্তমানে গুলশানের সুবাস্তু টাওয়ারের ৯/ সি/২ নম্বর ফ্ল্যাটে থাকতেন।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (পরিদর্শক) মো. বাচ্চু মিয়া মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ঢামেক মর্গে রাখা হয়েছে বিষয়টি সংশ্লিষ্ট থানাকে অবগত করা হয়েছে।

প্রেমিককে ভিডিও কলে রেখে আত্মহত্যা করেছেন জান্নাতুল নওরিন এশা (২২) নামের এক তরুণী। পুলিশ বলছে, জান্নাতুল এরশাদ শিকদারের মেয়ে।
শুক্রবার সকাল সাড়ে পাঁচটার দিকে গুলশানের সুবাস্তু টাওয়ারের নবম তলার একটি বাসায় এ ঘটনা ঘটে। গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জান্নাতুল নওরিন এশার মায়ের নাম সানজিদা নাহার। তিনি এরশাদ শিকদারের দ্বিতীয় স্ত্রী। তিনি জানান, প্রেমিককে ভিডিও কলে রেখে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে তার মেয়ে আত্মহত্যা করেছে।

আরও পড়ুন: এরশাদ শিকদারের মেয়ের অজানা জীবনের গল্প

প্লাবন ঘোষ (২৮) নামের এক ছেলের সঙ্গে সম্পর্ক ছিল জান্নাতুলের, এমনটাই জানিয়েছেন তার মা। সানজিদা নাহার অভিযোগ করে বলেন, বৃহস্পতিবার রাত নয়টার দিকে তার (প্রেমিক) সঙ্গে দেখা করতে বাসা থেকে বের হয় জান্নাতুল। পরে জান্নাতুলকে বাসার নিচে নামিয়ে দিয়ে যায় প্লাবন। এ সময় দু’জনের মধ্যে ঝগড়া ও হাতাহাতি হয়।

তিনি বলেন, বাসায় ফিরে জান্নাতুল নিজের ঘরের দরজা বন্ধ করে দেয়। সকালে মেয়ের ঘরের দরজায় ধাক্কা দিয়ে সাড়া পাওয়া যাচ্ছিলো না। পরে নিরাপত্তাকর্মীর সহযোগিতায় দরজা ভেঙে দেখা যায় ফ্যানের সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে গলায় ফাঁস দিয়েছে জান্নাতুল।

জান্নাতুলকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। জান্নাতুলের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজের মর্গে রাখা হয়েছে।

গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসান বলেন, জান্নাতুল এরশাদ শিকদারের মেয়ে। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

২০০৪ সালে খুলনায় হত্যা মামলায় সন্ত্রাসী এরশাদ শিকদারের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয়।