বিরতিহীন ভাবে লাশের পকেটে বাজছিল মোবাইল ফোন - Vikaspedia

বিরতিহীন ভাবে লাশের পকেটে বাজছিল মোবাইল ফোন

টিটু আহম্মেদ, কেরানীগঞ্জ থেকে: ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের তেঘুরিয়া সিএনজি স্ট্যান্ডের পাশ থেকে মরদেহর পকেটে বিরতিহীন ভাবে বাজছিল মোবাইল ফোন। মুখমণ্ডল থেতলানো ও প্লাষ্টিকের শক্ত টাই ক্লিপ দিয়ে গলায় ফাঁস লাগানো মৃত ব্যক্তির পকেটে বাজা ফোন কেউ ধরতে সাহস পাচ্ছিল না। খবর দেয়া হয় ঘটনাস্থল থেকে ২০০ মিটার দূরে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানায়। দ্রুত থানা থেকে এসে ফোন রিসিভ করে কথা হয় মৃত ব্যক্তির বড় ভাই আবুল কালাম এর সাথে।

জানা যায়, মোবাইলটির মালিক গতকাল রাত থেকে নিখোঁজ রয়েছেন। এর কিছুক্ষণের মধ্যেই আত্মীয়-স্বজন সকলেই এসে উপস্থিত হয় পরিচয় সনাক্ত করেন। জানা যায় নিহতের নাম মোঃ সালাম মিয়া (৫০)। নিহত সালাম মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর থানার সেলামত গ্রামের শেখ আসাদ আলীর পুত্র। বর্তমানে সে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার শুভাঢ্যা উত্তরপাড়া বিক্রমপুর গার্ডেন সিটি এলাকায় নিজ বাড়িতে পরিবারসহ বসবাস করে এবং মিটফোর্ড এলাকায় রজনী বোস

লেনে ভাঙ্গারীর ব্যবসা করত। বৃহস্পতিবার (১০ মার্চ) দুপুর ১টায় দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য মিটফোর্ড হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করে।

নিহতের বড় ভাই কালাম মিয়া জানান, গতকাল রাত ৯টায় দোকান বন্ধ করে যাত্রাবাড়ী এলাকায় পাওনা টাকা আদায় করতে গিয়ে রাতে আর বাসায় ফিরেনি। এরপর থেকে মোবাইলে অনেকবার ফোন দিলেও তা রিসিভ করেনি। আজ দুপুরে সালামের মোবাইল থেকে পুলিশ ফোন করে আমাকে মৃত্যু সংবাদ জানায়।আমি এই হত্যাকাণ্ডের সুষ্ঠু বিচার চাই।

দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ আবুল কালাম আজাদ জানান, হত্যা নিশ্চিত করতে একাধিক টাই ক্লিপ ব্যবহার গলায় ফাঁস লাগানো হয়েছে। হয়তো ঘাতকরা রাতের কোনো এক সময় অন্য কোথাও থেকে হত্যা করে লাশটি এখানে এসে ফেলে রেখে গেছে। হত্যাকাণ্ড বিষয়ে তদন্ত শেষে বিস্তারিত জানা যাবে।