‘রুশ সেনারা আমায় ইচ্ছে করে আঘাত করেনি’ - Vikaspedia

‘রুশ সেনারা আমায় ইচ্ছে করে আঘাত করেনি’

ঘরবাড়ি ছেড়ে নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে পশ্চিম কিভ ছাড়ছিলেন এক ব্যক্তি। গাড়ি চালাচ্ছিলেন নিজে।

সঙ্গে স্ত্রী ও দুই মেয়ে। কিন্তু গাড়ির সামনে প্রচণ্ড গতিতে ছুটে এলো একের পর এক বুলেট। একটি গুলি লাগল ছোট্ট মেয়ে সাশার হাতে।
কয়েক দিন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকার পর শিশু সাশার হাতটাই কেটে বাদ দিতে হয়। রুশ সেনাদের ওই হামলায় মারা যায় তার বাবাও। যদিও তার স্থির বিশ্বাস, ইচ্ছে করে তাকে আঘাত করেনি রুশ সেনা। তার সঙ্গে কী বা শত্রুতা তাদের।

জানা যায়, আহত মেয়েটির নাম সাশা (০৯)। বাবা-মায়ের সঙ্গে গাড়ি করে কিভ ছাড়ার সময় রুশ সেনার গুলির সামনে পড়ে তারা। গাড়ি থেকে নেমে দৌঁড়ে নিরাপদ জায়গা খুঁজছিল সাশার পরিবার। তখন রুশ সেনার গুলিতে নিহত হন সাশার বাবা। বোন আর মা কোনোক্রমে আশ্রয়ে পালাতে পারলেও গুলিতে জখম হয় সাশা।

এরপর একটি স্বেচ্ছাসেবক সংগঠনের সদস্যরা চাদরে মুড়ে ছোট্ট সাশাকে নিয়ে যায় হস্টোমেলের একটি হাসপাতালে। টানা দু’দিন সংজ্ঞাহীন ছিল সে। যখন তার জ্ঞান ফেরে ছোট্ট সাশা দেখল তার একটি হাত নেই। যদিও সে মনে করে তার ওপর রুশ সেনাদের ব্যক্তিগত শত্রুতা নেই!

সাশা জানায়, ‘আমি জানি না, কেন রুশ সেনা আমায় গুলি করল। আমার কাছে মনে হয় এটা নিছকই দুর্ঘটনা। ওরা নিশ্চয়ই আমায় ইচ্ছে করে আঘাত করেনি। আমার হাতে একটি গুলি লাগে। বোনের ওপর পড়ে গিয়েছিলাম। আমার মা-ও পড়ে যায়। আমার তখন মনে হল মা মারা গেছে। কিন্তু না, মা আমাদের নিয়ে লুকিয়ে পড়েন। তারপর আর কিছু আমার মনে নেই। ’

রাষ্ট্রসঙ্ঘের রিপোর্ট থেকে জানা যায়, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধে এ পর্যন্ত ৮৫টি শিশুর মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছে ১০০ জনের বেশি।

খবর: আনন্দ বাজার